আমি দলের বা আত্মীয় পরিচয় দেখতে চাই না, অভিযান চলবেই : প্রধানমন্ত্রী

দেশের চলমান দু’র্নীতিবিরোধী অ’ভিযান নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এ অ’ভিযানে কে দলের, কে কী’ বা কে আমা’র আত্মীয়-পরিবার এসব আমি দেখতে চাই না। অ’ভিযান অব্যাহত থাকবেই।

সম্প্রতি ভয়েস অফ আমেরিকাকে দেয়া একান্ত এক সাক্ষাৎকারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন। ভয়েস অফ আমেরিকার বাংলা বিভাগের প্রধান রোকেয়া হায়দারের নেয়া সাক্ষাৎকারের ভিডিও তাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে।

দেশে চলমান দু’র্নীতিবিরোধী অ’ভিযান নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, আম’রা জ’ঙ্গিবাদ দমন করেছি। কারণ, আমাদের দেশ অর্থনৈতিকভাবে উন্নতি করতে হবে। আম’রা মা’দকের বি’রুদ্ধে অ’ভিযান চালাচ্ছি, মা’দকের বি’রুদ্ধে অ’ভিযান চলছে। মা’দকের সাথে সাথে যদি দু’র্নীতির বি’রুদ্ধে অ’ভিযান না চালানো হয় তাহলে সমাজে একটা বিরাট বৈষম্যের সৃষ্টি হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আম’রা দিনরাত পরিশ্রম করে উন্নয়নের প্রকল্প তৈরি করি। আম’রা যে পরিমাণ অর্থ বরাদ্দ করি তা যথাযথভাবে কাজে লাগাতে পারলে দেশ আরও উন্নত হবে, আরও এগিয়ে যাবে। সমাজের বৈষম্যটাও দূর হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, এখানে (দু’র্নীতিবিরোধী অ’ভিযান) আমা’র দলের কে কী’, সেটা আমি দেখতে চাই না। আমা’র আত্মীয়-পরিবার দেখতে চাই না, বিত্তশালী কেউ আছে কি-না -এটা আমি দেখতে চাই না। অনিয়ম যেখানে আছে, দু’র্নীতি যেখানে আছে বা আমাদের দেশকে ফাঁকি দিয়ে যারা কিছু করতে চাচ্ছে তাদের বি’রুদ্ধে অ’ভিযান অব্যাহত থাকবেই।

তিনি আরও বলেন, হ্যাঁ, আমি জানি এটা খুব রিস্কি, এতে কোনো সন্দেহ নেই। এটা একটা (অ’বৈধ সম্পদ অর্জন) অ’সুস্থ প্রতিযোগিতা। এটা মুষ্টিমেয় কিছু লোক করে যাচ্ছে। এটা সাধারণ মানুষ করে না, কিন্তু এর প্রভাবটা চলে যাচ্ছে বিভিন্ন পর্যায়। সেখান থেকে দেশটাকে তো রক্ষা করতে হবে।

রোহিঙ্গা প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আম’রা একটি মানবিক কারণে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছিলাম। আমাদের জীবনেও এ ধরনের ঘটনা ঘটেছিল। সমস্যাটা প্রায় তৃতীয় বর্ষে পদার্পণ করছে। আম’রা মিয়ানমা’রের সাথে আলোচনা এবং একটি চুক্তিও করেছি যে, তারা তাদের নাগরিকদের ফেরত নেবে। কিন্তু ফেরত নেওয়ার সময় আর ফেরত নেয়া হচ্ছে না।