বিয়ের তিনদিনের মাথায় ফাঁ’স দিলেন নববধূ, স্বামী আত্মগো’পনে

কুষ্টিয়ার খো’কসায় বিয়ের মাত্র তিনদিনের মা’থায় পাপিয়া খাতুন নামে এক ন’ববধূ গ’লায় ফাঁ’স দিয়ে আত্মহ’ত্যা করেছেন। বৃহস্পতিবার রাতে উপজে’লার হিলালপুর গ্রামে বাবার বাড়িতে এ ঘ’টনা ঘটে। ঘটনার পর থেকে নববধূর স্বামী ও শ্ব’শুরবাড়ির লোকজন আত্মগো’পন করেছেন।

নিহ’তের স্বজনদের দাবি, খো’কসা সরকারি ডিগি কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী পাপিয়া খাতুনের সঙ্গে একই কলেজের শামীম রেজার প্রেমের স’ম্পর্ক গড়ে ওঠে। গত ৩০ সেপ্টেম্বর রাতে ওই ছাত্রীর বাবার বাড়ি উপজে’লার হিলালপুর গ্রামে তাদের বিয়ে হয়। কিন্তু এ বিয়ে মে’নে নিতে পা’রেনি ছেলের পরিবার।

বৃহস্পতিবার বিকেলে নববধূকে তার বাবার বাড়িতে রে’খে শামীম নিজের বাড়ি ফি’রে যান। গ’ভীর রাত পর্য’ন্ত স্বামী শামীম ফি’রে না আসায় এ নিয়ে নবদম্পতির মধ্যে মোবাইল ফোনে কথা কা’টাকা’টি হয়। একপ’র্যায়ে রাতেই নববধূ তার নিজ ঘরের সিলিং ফ্যা’নের স’ঙ্গে গ’লায় ও’ড়না পেঁ’চিয়ে আত্মহ’ত্যা করেন। শুক্রবার সকালে পরিবারের লোকজন পাপিয়ার কোনো সা’ড়া না পে’য়ে দরজা ভে’ঙে তাকে ফ্যা’নের স’ঙ্গে ঝু’লতে দেখেন। প’রে থানায় খবর দিলে পুলিশ ম’রদেহটি উ’দ্ধার করে।

নিহ’ত নববধূর বাবা ওম’র আলী জানান, পাপিয়াকে রেখে জা’মাই শামীম রেজা পা’লিয়ে বাড়ি চলে যায়। এতে অ’ভিমা’ন করে পাপিয়া আত্মহ’ত্যা করেছে।

এ ব্যাপারে শামীমের মুঠোফোনে বারবার কল দেয়া হলেও তিনি রিসিভ করে’ননি। তার বাবা রাজ্জাক বিশ্বা’সের বাড়ি উপজে’লার মির্জা’পুরে গিয়েও সেখানে কাউকে পাওয়া যা’য়নি।

এলাকাবাসী জানায়, পাপিয়ার আত্মহ’ত্যার সংবাদ পেয়েই তারা সবাই বাড়ির দরজায় তা’লা লাগিয়ে আত্মগো’পন করেছে।

খো’কসা থানার এসআই বুলবুল আহমেদ বলেন, এ ব্যাপারে একটি অ’পমৃ’ত্যুর মা’মলা হয়েছে। ম’রদেহ ম’য়নাত’দন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাস'পাতালের ম’র্গে পাঠানো হয়েছে।